ডুডলিং: বিচিত্র আঁকিবুকি ।

0
37
doodle
doodle

কখনো কি ক্লাশে বসে বোরিং ফিল করেছো ? তাহলে তোমার সাথে অবশ্যই ডুডলিং জড়িয়ে আছে । এখন হয়তো ভাবছো ডুডলিং আবার কি ? এর সাথে আমি জড়িয়েছি কিভাবে ? আসলে আমরা যখন বোরিং ফিল করি তখন আমাদের হাতের কাছে যদি কাগজ ও কলম থাকে তাহলে আমরা কি করি ? নিশ্চয়ই বসে থাকি না । যা মনে ওঠে তাই এঁকে ফেলি । কিন্তু বুঝতে পারি না যে কি আঁকি । আরে এগুলোই হলো ডুডলিং  । ডুুডলের কোনো মানেই বুঝতে পারি না কারন এটা আঁকার সময় আমাদের মনোযোগ যে কোথায় থাকে তাই বলতে পারি না । কত যে ডুডল এঁকেছি বীজগনিত ক্লাশে তার হিসেব নেই । আবার ইংরেজি ক্লাশেও কম আঁকি নি  ।

doodle
doodle

ডুডলিং কি?

ডুডলিং হচ্ছে একপ্রকার চিত্রশিল্প যা আঁকার জন্য কোনো ধরাবাধা নিয়ম নেই । শুধু কাগজ ও কলম নিয়েই মনের মত করে আঁকা যায় । ডুডলকে বলা হয় অর্থহীন চিত্র । শুধু রেখার উপর রেখা এঁকে ডুডল আঁকা হয় । আমরা অনেকেই ডুডল এর সাথে পরিচিত । কেননা বিভিন্ন সময়ে গুগল তাদের হোমপেইজে ডুডল প্রকাশ করে থাকে । বিশেষ করে স্মরনীয় ও বিখ্যাত ব্যক্তিদের জন্মদিনে এবং বিভিন্ন দিবসে । উইকিপিডিয়া মতে ডুডল হলো-

“A doodle is a drawing made  while a person’s attention is otherwise occupied.”

  

  • অর্থাৎ যখন একটি ডুডল অঙ্কন করা হয় তখন অঙ্কনকারীর মনোযোগ অন্যদিকে থাকে ।

উল্লেখ্য, আমাদের কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরও কিন্তু ডুডলিং করতেন ।

doodle
doodle

 

কখন ডুডল আঁকা হয়?

সাধারনত আমরা যখনই বোরিং ফিল করি তখনই আমাদের মনে উঁকি দেয় বিচিত্র সব ডুডল । আর তখন যদি হাতের কাছে কাগজ ও কলম থাকে তাহলে তো কথাই নাই, সৃষ্টি হয়  নতুন ডুডল । বেশিরভাগ সময় ক্লাশে বসেই নিত্যনতুন ডুডলের উদ্ভব । কারন আমরা অনেকেই ঐসময়ে বোরিং ফিল করি, আর ঠিক তখনই হিজিবিজি আঁকাআঁকি করি মানে ডুডলিং । ডুডল আঁকার কোনো নির্দিষ্ট সময় নেই যার যখন ইচ্ছা সে তখনই আঁকে । কিন্তু সকালে ঘুম থেকে উঠেই আঁকাআঁকি করা উচিত । কারন অন্যান্য সময়ের চেয়ে সকালবেলা আমাদের সৃজনশীলতা প্রায় ৩৩% বেশি থাকে । ডুডলিং করেনি এমন মানুষ খুজে পাওয়া যাবে না । আমরা সবাই জীবনে একবার হলেও ডুডলিং করেছি  । কারন ছাত্রজীবনে খাতায় হিজিবিজি আঁকাআঁকি করেনি এমন মানুষ পাওয়া অসম্ভব ।

doodle
doodle

কেন ডুডলিং করবো?

ডুডলিং করার অনেক সুবিধা আছে ।

@ ডুডলিং করলে সৃজনশীলতা বৃদ্ধি পায়

@ ডুডলিং স্মৃতি শক্তির জন্য অনেক ভালো- মনোবিজ্ঞান সম্পর্কিত একটি গবেষনায় প্রকাশিত হয়েছিলো যে, ডুডলিং করলে মানুষের স্মরন করার ক্ষমতা প্রায় ৩০% বৃদ্ধি পায় । ২০০৯ সালে মনোবিজ্ঞানী জ্যাকি এন্ড্রি ৪০ জন মানুষকে নিয়ে এই গবেষনা করেছিলেন । উক্ত গবেষনায় প্রত্যেককে কিছু প্রশ্ন করা হয় এবং উত্তর ও বলা হয় । পরবর্তীতে সবাইকে আবার প্রশ্নগুলো করা হয় তখন ডুডলার-রাই সবচেয়ে বেশি উত্তর দিয়েছিল এবং তা ৩০% বেশি ।

@ ডুডলিং করার কারনে আপনার অঙ্কন করার দক্ষতা বৃদ্ধি পায় । যা আপনাকে পরবর্তীতে অঙ্কনকে পেশা হিসেবে নিতে আগ্রহী করবে । যেমন গ্রাফিক ডিজাইন, ওয়েব ডিজাইন, নকশাকার  ইত্যাদি ।

@ সময় কাটানোর একটা উৎকৃষ্ট মাধ্যম । যখন সবকিছু আপনার কাছে বোরিং মনে হয় তখন আপনি ডুডলিং করে আপনার সময়টা দারুন কাটবে ।

 

@ এটা আপনার আয়ের একটা দারুন উৎস হতে পারে । ডুডলিং এ আপনি দক্ষ হলে আপনি একটা ওয়েবসাইট খুলে আপনার ডুডলিং এর প্রিন্ট কপি বিক্রি করে আয় করতে পারবেন । অথবা ইউটিউবে চ্যনেল খুলে ডুডলিং এর টিউটোরিয়াল ভিডিও আপলোড দিয়েও আয় করতে পারবেন ।

@ ডুডলিং এ দক্ষ হলে আপনি চিত্রশিল্পী হওয়ার দৌড়ে কয়েক কদম এগিয়ে থাকবেন ।

doodle
doodle

 

ডুডল আঁকার উপকরণ কি?

ডুডলিং এর জন্য কাগজ ও কলমেরই প্রয়োজনীয়তা বেশি । কাগজ-কলমের পাশাপাশি বিগিনারদের জন্য নিম্ন লিখিত উপকরণ গুলো দরকার :

@   পেন্সিল

@    কাগজ

@    মার্কার

@   বলপয়েন্ট পেন

@    সিগনেচার পেন

@    কালারফুল জেলপেন

@   কালো জেলপেন

@   হাইলাইটার পেন

@    ইংক পেন

আর যারা অনেকদিন যাবত নিয়মিত ডুডলিং করে তাদের জন্য প্রয়োজন:

@    ব্রাশ পেন

@   ফেইথ পেন

@    প্যাস্টেল কালার

@    পোস্টার কালার

@   ওয়াটার কালার

@    রাবার স্ট্যাম্প

@    কার্টিজ পেপার

@    আর্ট পেপার

@    পিগমা ম্যাক্রন

@    কপিক মার্কার ইত্যাদি ।

উপরের উপকরণগুলো বিভিন্ন ষ্টেশনারিতে পাওয়া যাবে । এছাড়াও ঢাকার নিউমার্কেট ও আজিজ সুপারমার্কেটে পাওয়া যাবে । বর্তমানে অনলাইন মার্কেটপ্লেস থেকেও এগুলো ক্রয় করা সম্ভব ।

doodle
doodle

 

কিভাবে ডুডলিং শিখব?

ডুডলিং শিখতে চাইলে শুরু করে দেও দেরি না করে । শেখার অনেক মাধ্যম আছে । যেমন- ইউটিউব, গুগল ও অন্যান্য ব্লগসাইট । ডুডলিং এর জন্য ইউটিউবে কয়েক হাজারের উপরে ভিডিও টিউটোরিয়াল আছে । পছন্দমত যেকোনো একটি বা একাধিক চ্যানেলের ভিডিও দেখে অঙ্কন শুরু করে দিতে পারো । ডুডলিং এ পারদর্শী হতে হলে অনুশীলনের বিকল্প নেই । আর তাছাড়াও গুগল তো আছেই । গুগলে ডুডলিং শেখার অসংখ্য এন্ড্রয়েড অ্যাপলিকেশন ও পিডিএফ আছে যেগুলো ডাউনলোড করে ডুডলিং শিখতে পারবেন । আপনি বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়া যেমন- ফেসবুক, ইন্সটাগ্রাম ইত্যাদি তে অনেক ডুডলারকে ফলো করতে পারেন এবং তাদের করা ডুডলিং গুলো অনুশীলন করতে পারেন ।

উত্তর দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here